বিকেলে মোদী-মমতা বৈঠকে যে বিষয়গুলি উঠতে পারে

উঠতে

বিকেলে মোদী-মমতা বৈঠকে যে বিষয়গুলি উঠতে পারে। আজ বিকাল ৫টায় মোদী-মমতা সাক্ষাত্। দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে হবে বৈঠক। একাধিক বিষয় নিয়ে এদিন আলোচনার সম্ভাবনা রয়েছে। দিল্লিত রয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ বুধবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বিকাল ৫টায় বৈঠকের কথা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর। তার আগে বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামীর সঙ্গেও বৈঠকের কথা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সোমবারই দিল্লি গিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লি যাওযার আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, “বাংলার উন্নয়নের নানা বিষয় নিয়ে কথা তো হবেই। তবে মূলত আলোচনা হবে বিএসএফ নিয়ে।”

 

তাঁর আরও হুঁশিয়ারি, “গায়ের জোরে এলাকা দখল করতে দেব না। বিএসএফ আমার বন্ধু। তবে বিএসএফ মানেই বিজেপি নয়।” এছাড়া বৈঠকে ত্রিপুরার রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রসঙ্গেও ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। ২০২০-২১ আর্থিক বছরে জিএসটি বাবদ ২০০০ কোটি টাকা প্রাপ্য বাংলার। পাশাপাশি আমফান, ইয়াস ইত্যাদি মোকাবিলা বাবদ ৩২ হাজার কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। এছাড়াও আবাস যোজনা, সড়ক যোজনা, ন্যাশনাল হেলথ মিশন, জল জীবন মিশন-সহ একগুচ্ছ প্রকল্পের টাকা বকেয়া রয়েছে রাজ্যের‌। সেই টাকা মেটানোর জন্যও প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী।

 

বিরোধী জোটের জমি তৈরি করার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকও রয়েছে তাঁর দিল্লির সফর সূচিতে। আসন্ন শীতকালীন অধিবেশনে কোন পথে এগোনো হবে, তা নিয়েও দলের সাংসদদের সঙ্গে আলোচনা করবেন তৃণমূলনেত্রী। এবং সেখানে বড় হয়ে উঠতে চলেছে ত্রিপুরা ইস্যু। প্রসঙ্গত আগামিকাল বৃহস্পতিবার ত্রিপুরায় হতে চলেছে পুরভোট। এবারের নির্বাচনে অংশ নিয়েছে তৃণমূল। তবে প্রচার পর্বে বারেবারেই তাদের ওপরে বিজেপির তরফে হামলা চালান হয়েছে বলে অভিযোগ তোলে ঘাসফুল শিবির। এমনকী পুরভোট স্থগিত রাখার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদনও জানায় তারা।

 

আর ও পড়ুন    বিশ্বজুড়ে ফের ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ

 

যদিও তৃণমূলের সেই আবেদন কারিজ করে দিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত। অন্যদিকে দিল্লিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থাকাকালীন চলছে তৃণমূলে যোগদানের কর্মসূচিও। ইতিমধ্যেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন পবন বর্মা, কীর্তি আজাদ, অশোক তানওয়ারের মতো ব্যক্তিত্ব। অশোক তানওয়ার একসময় হরিয়ানায় কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন। অশোক তানওয়ারের যোগদানের পরেই মমতা বলেন, “আমি হরিয়ানা যেতে চাই, অশোকজি আমায় যখন ডাকবেন তখনই যাব।”  এদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর রাজধানী সফরের মধ্যেই দিল্লিতে বিদ্যুত্‍ বিভ্রাট। মমতা দিল্লি গেলে থাকেন সাউথ অভিনিউয়ে অভিষেকের বাংলোয়।

 

গতকাল সন্ধ্যা পৌনে সাতটা নাগাদ গোটা সাউথ অ্যাভিনিউয়ে বিদ্যুত্‍ বিপর্যয় হয়। বাড়িতে আলো না থাকায় বেশ কিছু ক্ষণ অন্ধকারেই থাকতে হয় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে। এই সাউথ অ্যাভিনিউয়েই থাকেন হেভিওয়েট নেতা, মন্ত্রী, সাংসদেরা। ঢিল ছোঁড়া দূরে রাষ্ট্রপতি ভবন। বিদ্যুত্‍ বিপর্যয়ে দুর্ভোগ বাড়ে এলাকার বাসিন্দাদের। দিল্লি প্রশাসন সূত্রের খবর, আচমকাই যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই লোডশেডিং হয়েছিল গতকাল।বেশ কিছু ক্ষণ বিদ্যুৎহীন থাকার পর আলো আসে। প্রসঙ্গত, এই বছরই জুলাইয়ে মুখ্যমন্ত্রী দিল্লি সফরে গিয়েছিলেন। রাজ্যে তৃতীয়বার সরকার গঠনের পর সেটাই ছিল তাঁর প্রথম দিল্লি সফর। সেবারও তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন।