কী খাবার খেলে আপনার রাতে ভালো ঘুম হবে? জেনে নিন

খাবার

কী খাবার খেলে আপনার রাতে ভালো ঘুম হবে? জেনে নিন । রাতে ঠিকমতো ঘুম প্রতিটি মানুষের সকল স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে অনেকেরই রাতে পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ার সমস্যা হয়ে থাকে। প্রতিদিন অন্তত ৬-৯ ঘণ্টা ঘুমানো আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি।মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা ঘুম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। রাতে ঠিকমতো ঘুম হলে আমাদের কিছু দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা থেকে মুক্তি মিলতে পারে।

 

পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম না হলে দেখা দিতে পারে নানা ধরনের সমস্যা। পর্যাপ্ত ঘুমের আশায় অনেকেই ওষুধের ওপর সেবন করে থাকে। যা স্বাস্থের জন্য অনেক বড় ক্ষতি হতে পারে। তবে শরীরের কোনো ক্ষতি না করেই কিছু প্রকৃতিক খাবারের মাধ্যমে আপনার ভালো ঘুম হতে সহায়তা করবে।

 

ভাত হচ্ছে আমাদের দেশের প্রধান খাবার । ভাত আমাদের রাতে ভালো ঘুম হতে সহায়তা করে। তবে তা আমাদের অনেকেরই অজানা। সাদা চালে কিছু ভিটামিন ও খনিজ উপাদান থাকে। আর এটি হচ্ছে একটি জিআই যুক্ত খাবার। আর উচ্চ জিআইযুক্ত খাবার ঘুমানোর অন্তত ১ ঘণ্টা আগে খেলে তা ঘুমের মান উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

 

বাদামের অনেক উপকারিতা রয়েছে। বাদামে রয়েছে স্বাস্থ্যকর মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট, ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট । কিন্তু বাদাম যে ভালো ঘুম হতে সহায়তা করে বিষয়টি এখনো অনেকের জানা নেই । আর গবেষকদের দাবি, বাদাম ঘুমের গভীরতা বাড়াতেও সাহায্য করে থাকে। কারণ হিসেবে তারা জানান, বাদামে রয়েছে মেলাটোনিন হরমোনের উৎস।

 

আর ও পড়ুন     বিচ্ছেদের গুঞ্জন ওড়ালেন শিল্পা শেঠি

 

কলায় রয়েছে ট্রিপটোফান । এটি ম্যাগনেসিয়ামের অনেক ভালো উৎস। আর এই দুটি বৈশিষ্ট্যে রাতে ভালো ঘুম হওয়ার ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।

 

মাছ একটি অন্যতম খাবার । রাতে ভালো ঘুমের ক্ষেত্রে সহায়ক হতে পারে বিভিন্ন চর্বিযুক্ত মাছ ও মাছের তেলে। যাতে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ও ভিটামিন ডি। এছাড়া এ অ্যাসিড হৃদরোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিয়ে থাকে পাশাপাশি মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। আর ভিটামিন ডি ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড উভয়ই সেরোটোনিনের উৎপাদন বাড়াতে সহায়তা করে।

 

উল্লেখ্য, কী খাবার খেলে আপনার রাতে ভালো ঘুম হবে? জেনে নিন । রাতে ঠিকমতো ঘুম প্রতিটি মানুষের সকল স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে অনেকেরই রাতে পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ার সমস্যা হয়ে থাকে। প্রতিদিন অন্তত ৬-৯ ঘণ্টা ঘুমানো আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরি।মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা ঘুম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

 

রাতে ঠিকমতো ঘুম হলে আমাদের কিছু দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা থেকে মুক্তি মিলতে পারে। পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম না হলে দেখা দিতে পারে নানা ধরনের সমস্যা। পর্যাপ্ত ঘুমের আশায় অনেকেই ওষুধের ওপর সেবন করে থাকে। যা স্বাস্থের জন্য অনেক বড় ক্ষতি হতে পারে। তবে শরীরের কোনো ক্ষতি না করেই কিছু প্রকৃতিক খাবারের মাধ্যমে আপনার ভালো ঘুম হতে সহায়তা করবে।