বিচ্ছেদের গুঞ্জন ওড়ালেন শিল্পা শেঠি

গুঞ্জন

বিচ্ছেদের গুঞ্জন ওড়ালেন শিল্পা শেঠি ।  রাজ কুন্দ্রার সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে শিল্পা শেঠির- এমন একটা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছিল। বিশেষ করে পর্ন-কেলেঙ্কারির জেরে রাজের সঙ্গে আর থাকা হচ্ছে না তার- গুঞ্জনটা ছিল এ রকম। কিন্তু এসব যে নিতান্তই গুজব- তা পরিষ্কার করেছেন খোদ শিল্পাই।শিল্পা আর রাজ কুন্দ্রার বিয়ের এক যুগ পূর্ণ হয়েছে। ১২তম বিবাহবার্ষিকীতে স্বামীকে একটি খোলাচিঠি লিখেছেন এ বলিউড অভিনেত্রী। আর তাতেই তিনি সব রহস্য ফাঁস করে দিয়েছেন।

 

শিল্পা লিখেছেন, ‘এই দিনে, এই মুহূর্তে আজ থেকে ১২ বছর আগে আমরা একে অপরকে একটা কথা দিয়েছিলাম। ভাল সময়ে সঙ্গে থাকার, কঠিন সময়ে পাশে থাকার, ভালবাসায় ভরসা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। ঈশ্বরের প্রতি আস্থা রেখেছিলাম। ১২ বছর কেটে গেছে। আর দিন গুনছি না। শুভবিবাহবার্ষিকী, কুকি।’

 

আর ও পড়ুন     একরাতের বৃষ্টিতেই ভেসে গেল বেঙ্গালুরু

 

এই লেখার সঙ্গেই বিয়ের একাধিক ছবির কোলাজ জুড়ে দিয়েছেন শিল্পা। ইনস্টাগ্রামের দেওয়ালে সাজিয়ে রাখলেন তাদের আজীবন ভালবাসার গল্প। পর্ন-কাণ্ডে জামিন পাওয়ার পর নিজেকে চার দেওয়ালের ঘেরাটোপে রেখেছিলেন রাজ। দিন কয়েক আগেই জনসমক্ষে এসেছেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন শিল্পা। ধর্মশালার একটি মন্দিরে একসঙ্গে গিয়েছিলেন তারা।

 

স্বামী রাজ কুন্দ্রার সঙ্গে শিল্পা শেঠি হাতে হাত রেখেই সংবাদমাধ্যমের সামনে এসেছিলেন শিল্পা। রং মিলিয়ে দু’জনেই পরেছিলেন হলুদ পোশাক। বিতর্ক-সমালোচনা-কটাক্ষ সামলেই একে অপরের সঙ্গে দিনযাপন তাদের। মনোমালিন্যের মেঘ সরিয়ে নিজেদের মতো করে খুশি রাজ-শিল্পা। সে কথাই যেন আরও একবার স্পষ্ট হয়ে গেল।

 

উল্লেখ্য, রাজ কুন্দ্রার সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে শিল্পা শেঠির- এমন একটা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছিল। বিশেষ করে পর্ন-কেলেঙ্কারির জেরে রাজের সঙ্গে আর থাকা হচ্ছে না তার- গুঞ্জনটা ছিল এ রকম। কিন্তু এসব যে নিতান্তই গুজব- তা পরিষ্কার করেছেন খোদ শিল্পাই।শিল্পা আর রাজ কুন্দ্রার বিয়ের এক যুগ পূর্ণ হয়েছে। ১২তম বিবাহবার্ষিকীতে স্বামীকে একটি খোলাচিঠি লিখেছেন এ বলিউড অভিনেত্রী। আর তাতেই তিনি সব রহস্য ফাঁস করে দিয়েছেন। শিল্পা লিখেছেন, ‘এই দিনে, এই মুহূর্তে আজ থেকে ১২ বছর আগে আমরা একে অপরকে একটা কথা দিয়েছিলাম। ভাল সময়ে সঙ্গে থাকার, কঠিন সময়ে পাশে থাকার, ভালবাসায় ভরসা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। ঈশ্বরের প্রতি আস্থা রেখেছিলাম। ১২ বছর কেটে গেছে। আর দিন গুনছি না। শুভবিবাহবার্ষিকী, কুকি।’