ন্যাশনাল হিউমান রাইটস কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যানের বোর্ড গাড়িতে লাগানোর অভিযোগে স্কুলশিক্ষককে আটক করল পুলিশ

উত্তর দিনাজপুর:- ভারত সরকারের প্ল্যানিং কমিশন কর্তৃক অধিগৃহীত ও সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশন অনুমোদিত ন্যাশনাল হিউমান রাইটস কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যানের বোর্ড গাড়িতে লাগানোর অভিযোগে উত্তর দিনাজপুর জেলার প্রাক্তন প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান তথা স্কুলশিক্ষক বেঞ্জামিন হেমরমকে আটক করল রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। রবিবার রায়গঞ্জের ফ্ল্যাট থেকে গাড়ি সহ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে যখন একের পর এক ভূয়ো অফিসার পরিচয় দিয়ে জালিয়াতির ঘটনা সামনে আসছে তখন এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে শহরজুড়ে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Screenshot 20210712 201449 WhatsApp 1 ন্যাশনাল হিউমান রাইটস কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যানের বোর্ড গাড়িতে লাগানোর অভিযোগে  স্কুলশিক্ষককে আটক করল পুলিশ

উল্লেখ্য তৃনমূল কংগ্রেস এরাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর ২০১৪ সালে উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান করা হয়েছিল বেঞ্জামিন হেমরমকে। যদিও পরবর্তীতে দূর্নীতির অভিযোগেই তাকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। বর্তমানে বেঞ্জামিন হেমরম হেমতাবাদ আদর্শ হাইস্কুলের ইংরাজি বিভাগের শিক্ষক। যদিও বর্তমানে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের কোন পদে নেই। আগে তিনি হেমতাবাদে থাকলেও বর্তমানে রায়গঞ্জের চন্ডীতলায় একটি আবাসনে থাকেন। উত্তর দিনাজপুর জেলা সদর দপ্তর কর্নজোড়ায়। জানা গিয়েছে জেলা পুলিশের কর্তারা সেই পথ দিয়ে যাবার সময় কালো গাড়িতে কেন্দ্রীয় সরকারের এই বোর্ডটি দেখতে পান। সন্দেহ হওয়ায় জেলা পুলিশ কর্তারা রায়গঞ্জ থানাকে বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন। এরপরেই রবিবার দুপুরে পুলিশ বেঞ্জামিন বাবুর আবাসনে হানা দেয়। কথাবার্তায় অসঙ্গতি ধরা পড়ায় গাড়ি সহ তাকে আটক করে রায়গঞ্জ থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। বাজেয়াপ্ত করা হয় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। রাজ্যজুড়ে যখন একের পর এক ভুয়ো সরকারী আধিকারিক পরিচয় দিয়ে জালিয়াতির ঘটনা সামনে আসছে তখন এই ঘটনায় আলোড়ন ছড়িয়েছে শহরজুড়ে। যদিও বেঞ্জামিন হেমব্রম বলেন একটি এন জি ও সংস্থার নিয়াগ পত্র রয়েছে তার কাছে। সংস্থার চেয়ারম্যানের অনুমতিক্রমে তিনি গাড়িতে এই বোর্ড ব্যবহার করছেন। তবে কথায় বেশ কিছু অসঙ্গতি থাকায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আসল তথ্য জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। যদিও এব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।