পিয়ালী নদীতে তলিয়ে গেল যাত্রী বোঝাই নৌকা

পিয়ালী

পিয়ালী নদীতে তলিয়ে গেল যাত্রী বোঝাই নৌকা।  দক্ষিণ ২৪পরগনা জেলার   সুন্দরবনের পিয়ালী নদীতে তলিয়ে গেল যাত্রী বোঝাই নৌকা।  বৃহস্পতিবার সন্ধেয় ঘটনাটি ঘটেছে কুলতলি ব্লকের মেরিগঞ্জ এলাকায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের ততপরতায় নৌকার, ৩০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃতদের  মধ্যে বেশ কয়েকজন মহিলা ও শিশু রয়েছে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে চলে আসে কুতললি থানার পুলিশ।  উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের মধ্যে নেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, এদিনের ঘটনায় কোন প্রাণহানি ঘটেনি।

 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধে সাতটা নাগাদ মেরিগঞ্জের নোয়াপাড়া নদী ঘাট থেকে জয়নগর-১ ব্লকের মহিষমারি পর্যন্ত পারাপারের ক্ষেত্রে সারা বছর পিয়ালী নদীতে নৌকা চলে। বৃহসতিবার সন্ধ্যেয় নৌকা করে মহিষমারি হারি হাটের উদ্যেশে রওনা দিয়েছিলেন ৩০ জন যাত্রী। নৌকা। বৈঠা টানা এই নৌকাগুলিতে সর্বোচ্চ ১০ জন যাত্রী তোলার অনুমতি রয়েছে। পূর্ণিমার ভরা কোটালের জেরে এদিন পিয়ালী নদীতে জলস্ফীতি ছিল। তারউপর অতিরিক্ত যাত্রী তোলার ফলে মাঝ নদীতে নৌকা ডুবে যায়।

 

আর ও পড়ুন     বাংলাদেশের হিংসা নিয়ে শেখ হাসিনাকে খোলা চিঠি লিখলেন তসলিমা

 

তাঁদের আর্ত চিৎকার শুনে স্থানীয় বাসিন্দা ও মৎস্যজীবীরা উদ্ধার করতে নেমে পড়েন। প্রায় ১৩ জন যাত্রী সাঁতার কেটে ডাঙায় ফিরে আসতে সক্ষম হন। কিন্তু যাত্রীদের শিশু এবং মহিলাদের অনেকেই আটকে পড়েন। স্থানীয়রাই তাঁদেরকে উদ্ধার করেন। পুলিশের সহযোগীতায় ৩০ যাত্রীকেই উদ্ধার হয়েছে। এ বিষয়ে বারুইপুরের এসডিও সুমন পোদ্দার জানিয়েছেন, ‘এদিন সব যাত্রীকেই উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। কয়েক জন অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে কেন অতিরিক্ত যাত্রী তোলা হয়েছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 

উল্লেখ্য, পিয়ালী নদীতে তলিয়ে গেল যাত্রী বোঝাই নৌকা।  দক্ষিণ ২৪পরগনা জেলার   সুন্দরবনের পিয়ালী নদীতে তলিয়ে গেল যাত্রী বোঝাই নৌকা।  বৃহস্পতিবার সন্ধেয় ঘটনাটি ঘটেছে কুলতলি ব্লকের মেরিগঞ্জ এলাকায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের ততপরতায় নৌকার, ৩০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃতদের  মধ্যে বেশ কয়েকজন মহিলা ও শিশু রয়েছে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে চলে আসে কুতললি থানার পুলিশ।  উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের মধ্যে নেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, এদিনের ঘটনায় কোন প্রাণহানি ঘটেনি।