বজ্রপাত রোধে শেষ পর্যন্ত কি উদ্যোগ নেওয়া হলো ?

বজ্রপাত
বজ্রপাত

বজ্রপাত রোধে শেষ পর্যন্ত কি উদ্যোগ নেওয়া হলো ?  বজ্রপাত রোধে নারকেল গাছ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ইতিমধ্যে থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামে এই গাছ লাগানোর সুফল পাওয়া গেছে। বজ্রপাত রোধে বিভিন্ন জায়গায় নারকেল গাছ লাগানোর পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

সেইমতো আমতা ২ নং ব্লক প্রশাসনের উদ্যোগে সাধারণ মানুষের হাতে ২৫০ নারকেল গাছের চারা তুলে দেওয়া হল। ব্লক প্রশাসন সূত্রে খবর আগামী দিনে এই রকম আরো মানুষের হাতে নারকেল গাছের চারা তুলে দেওয়া হবে।

 

গত কয়েক বছরে রাজ্যে বজ্রপাতের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি বজ্রপাতে মানুষের প্রাণহানির সংখ্যা ও ক্রমশ বাড়ছে। বজ্রপাতের সময় অনেকেই গাছের নিচে দাঁড়াতে বারণ করে। যদিও এই গাছ অন্যভাবে বজ্রপাত কমানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

 

আর ও পড়ুন  দুর্যোগ মোকাবিলায় এবার হাজির কমলা বাহিনী, মহড়া শুরু হলো কোথায়?

 

পরিবেশবিদদের মতে কয়েকটি বিশেষ ধরনের গাছ লাগালে এই সমস্যা অনেকটাই সমাধান করা সম্ভব। তাদের মতে একদিকে যেমন একশ্রেণীর গাছ আছে যারা বাজ শুষে মাটিতে নামিয়ে নেয় অন্যদিকে অন্য শ্রেণির গাছ আছে যারা বাজ পড়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হতে দেয় না। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মতে তাল নারকেল গাছ তাদের উচ্চতার জন্য বজ্রপাতের আঘাতকে রুখে দিতে পারে।

 

সেই কারণে ইতিমধ্যে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় নারকেল গাছ লাগানো হচ্ছে। আমতা ২ নং ব্লকে নারকেল গাছ লাগানো প্রসঙ্গে আমতা ২ নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তথা আমতার বিধায়ক সুকান্ত পাল জানান বজ্রপাতের হাত থেকে মানুষকে রক্ষা করতে আমরা বেশি করে নারকেল গাছ লাগানোর পরিকল্পনা করেছি। এর আগে জেলা থেকে পাঠানো নারকেল গাছ মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে । এছাড়াও কৃষি দপ্তর থেকে পাঠানো এবং পঞ্চায়েত সমিতির পক্ষ থেকে নারকেল গাছের চারা কিনে বিতরণ করা হচ্ছে