ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের দাবিতে বানভাসি মানুষদের পদযাত্রা

বানভাসি

ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের দাবিতে বানভাসি মানুষদের পদযাত্রা। ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানে অর্থ বরাদ্দ করে আগামী বর্ষার পূর্বেই শিলাবতী নদী এলাকায় কাজ শুরুর দাবিতে সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার  বরদা চৌকান থেকে ঘাটাল পর্যন্ত পদযাত্রায় সামিল হলেন প্রায় তিন শতাধিক বানভাসি মানুষ।গত বর্ষায় ঘাটাল মহকুমার বিরাট অংশ ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছিল। ঘরবাড়ি- ফসলের ক্ষতি- এমনকি কয়েকজনের প্রাণহানিও  হয়েছিল।

 

এবারের বন্যার ভয়াবহতা লক্ষ্য করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ও হেলিকপ্টার চড়ে এসেছিলেন ঘাটালে। আকাশ পথে বন্যা পরিস্থিতি দেখার পর তিনি জলে নেমে বন্যা দুর্গতদের কাছে পৌঁছে তাঁদের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন।

 

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এসেছিলেন সেচমন্ত্রী   সৌমেন মহাপাত্র, জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী  মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া , প্রয়াত পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখার্জি , সেচ  দপ্তরের প্রধান সচিব।  এমনকি দিল্লির টিমও এলাকা পরিদর্শনে আসতে বাধ্য হয়ে হয়েছিলেন।

 

আর ও পড়ুন      ত্রিপুরা নিয়ে কি হুঁশিয়ারি দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ?

 

শুধু তাই নয়, এলাকাবাসীর দাবিমত রাজ্য সরকার মন্ত্রী ,  প্রতিমন্ত্রী , বিধায়ক দের প্রতিনিধিদের  দিল্লি পাঠিয়েছিল  । তাঁরা কেন্দ্রীয় জলসম্পদ দপ্তরের মন্ত্রীর সাথে কথা বলেন । আশ্বাস মেলে ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান দ্রুত রূপায়ণের। ফি বছর শিলাবতী , ঝুমি , কাঁসাই নদীর জলে প্লাবিত হয় ঘাটাল , চন্দ্রকোনা -১ ও ২ , দাসপুর – ১ ও ২ ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকা। লক্ষাধিক মানুষ বন্যার কবলে পড়েন।

 

রাজ্য সরকার এসব তথ্য ও বন্যা কবলিত মানুষের দুর্দশার ছবি কেন্দ্র সরকারের কাছে পেশ করলেও
কেন্দ্রীয় সরকার অর্থ মঞ্জুর করার বিষয়ে এখনো কোন উচ্চ-বাচ্য করছে না।এমতাবস্থায় উপরোক্ত দাবিতে আন্দোলনকে তীব্রতর করতে ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান রূপায়ণ সংগ্রাম কমিটি সোমবার বরদা চৌকান থেকে ঘাটাল পর্যন্ত পদযাত্রার কর্মসূচি নেয়।

 

উল্লেখ্য, ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের দাবিতে বানভাসি মানুষদের পদযাত্রা। ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানে অর্থ বরাদ্দ করে আগামী বর্ষার পূর্বেই শিলাবতী নদী এলাকায় কাজ শুরুর দাবিতে সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার  বরদা চৌকান থেকে ঘাটাল পর্যন্ত পদযাত্রায় সামিল হলেন প্রায় তিন শতাধিক বানভাসি মানুষ।গত বর্ষায় ঘাটাল মহকুমার বিরাট অংশ ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছিল। ঘরবাড়ি- ফসলের ক্ষতি- এমনকি কয়েকজনের প্রাণহানিও  হয়েছিল।

 

এবারের বন্যার ভয়াবহতা লক্ষ্য করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ও হেলিকপ্টার চড়ে এসেছিলেন ঘাটালে। আকাশ পথে বন্যা পরিস্থিতি দেখার পর তিনি জলে নেমে বন্যা দুর্গতদের কাছে পৌঁছে তাঁদের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে বন্যা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এসেছিলেন সেচমন্ত্রী   সৌমেন মহাপাত্র, জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী  মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া , প্রয়াত পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখার্জি , সেচ  দপ্তরের প্রধান সচিব।  এমনকি দিল্লির টিমও এলাকা পরিদর্শনে আসতে বাধ্য হয়ে হয়েছিলেন।