ভোরের শহর ফের সাক্ষী হল এক অগ্নিকাণ্ডের, ভস্মীভূত খাদ্য শস্যর গুদাম

শিলিগুড়িতে

ভোরের শহর ফের সাক্ষী হল এক অগ্নিকাণ্ডের, ভস্মীভূত খাদ্য শস্যর গুদাম। উল্টোডাঙা থানা এলাকায় ভোরবেলা বিধ্বংসী আগুন লেগে পুড়ে ছাই খাদ্য শস্যের গুদামের কাঁচামালের মত সামগ্রী ও পণ্য। ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ উল্টোডাঙা থানা এলাকার ১৬ নম্বর আরিফ রোডের একটি খাদ্য শস্যের গুদামের প্রসেসিং ইউনিটে আগুন লাগে। গুদামে ডাল, আটা এবং বেসন ঠাসা ছিল। ফলে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে আগুন।

 

আগুন এক গুদাম থেকে অন্য গুদামে ছড়াতে থাকে। এলাকাটি ঘিঞ্জি হওয়ায় সেখানে আগুন নেভাতে গিয়ে বেগ পেতে হয় দমকলকে। ১২টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় সকাল সাড়ে ছ’টা নাগাদ আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানান দমকলকর্মীরা। তবে ততক্ষণে সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়ে যায় গুদামটি। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও আপাতত চলছে কুলিং ডাউন প্রক্রিয়া।

 

লাগোয়া দাসপাড়া বস্তির বেশিরভাগ বাসিন্দা এই ডাল থেকে বেসন তৈরির পেশায় যুক্ত। তাই এখানে গায়ে ঘেঁষে একাধিক এরকম ছোট বড় প্রায় গোটা আট গুদাম আছে। একটি গুদামের আগুন মিনিট পনেরোর মধ্যে লাগোয়া আরও দুটি গুদামে ছড়িয়ে পড়ে।

 

এই ঘটনায় এলাকায় তুমুল উত্তেজনা ও ভীতি ছড়িয়ে পড়ে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে আসে দমকল। মানিকতলা ফায়ার স্টেশন থেকে প্রথমে তিনটি, এবং পরে আরও সাতটি ও শেষে দুটি, অর্থাৎ মোট বারোটি ইঞ্জিন আসে আগুন নেভাতে৷ যদিও প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়। সঙ্কীর্ণ বস্তির গলি এবং সরু রাস্তার ফলে আগুনের উৎসে পৌঁছতে বেগ পেতে হয় দমকলকে।

 

আর ও পড়ুন    মাঝারি মাপের তেলে ভোলা মাছ উঠলো কুলতলিতে

 

তবে গুদাম লাগোয়া বস্তিকে কার্যত বাঁচিয়ে দেয় দাসপাড়া বস্তির পাঁচটি বড় জলের ট্যাঙ্ক। জলের প্রাথমিক উৎস ছিল এটাই। তাই গাড়ি কাছাকাছি না পৌছাতে পারলেও, ট্যাঙ্কের জল পাম্প করে লুপ লাইন তৈরি করে প্রাথমিকভাবে আগুনে নিয়ন্ত্রণ পায় দমকল। জানা গিয়েছে, ভোরে স্থানীয়দের নজরে আসে গুদামে আগুন লাগার বিষয়টি। সঙ্গে সঙ্গে দমকল ও পুলিশে খবর দেওয়ার হয়।

 

পাশাপাশি স্থানীয়রা নিজেরাই টিউবওয়েল থেকে জল তুলে আগুন নেভাতে সচেষ্ট হন। তবে ঠিক কী থেকে আগুন লেগেছিল তা এখনও জানা যায়নি। আগুনে কোনও হতাহত বা আহত হওয়ার কোনও খবর পাওয়া যায়নি। তবে মনে করা হচ্ছে, ডালের গোডাউনে একাধিক দাহ্য বস্তু মজুত থাকাতেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

 

উল্লেখ্য, ভোরের শহর ফের সাক্ষী হল এক অগ্নিকাণ্ডের, ভস্মীভূত খাদ্য শস্যর গুদাম। উল্টোডাঙা থানা এলাকায় ভোরবেলা বিধ্বংসী আগুন লেগে পুড়ে ছাই খাদ্য শস্যের গুদামের কাঁচামালের মত সামগ্রী ও পণ্য। ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ উল্টোডাঙা থানা এলাকার ১৬ নম্বর আরিফ রোডের একটি খাদ্য শস্যের গুদামের প্রসেসিং ইউনিটে আগুন লাগে। গুদামে ডাল, আটা এবং বেসন ঠাসা ছিল। ফলে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে আগুন।আগুন এক গুদাম থেকে অন্য গুদামে ছড়াতে থাকে। এলাকাটি ঘিঞ্জি হওয়ায় সেখানে আগুন নেভাতে গিয়ে বেগ পেতে হয় দমকলকে।

 

১২টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় সকাল সাড়ে ছ’টা নাগাদ আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানান দমকলকর্মীরা। তবে ততক্ষণে সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়ে যায় গুদামটি। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও আপাতত চলছে কুলিং ডাউন প্রক্রিয়া।লাগোয়া দাসপাড়া বস্তির বেশিরভাগ বাসিন্দা এই ডাল থেকে বেসন তৈরির পেশায় যুক্ত। তাই এখানে গায়ে ঘেঁষে একাধিক এরকম ছোট বড় প্রায় গোটা আট গুদাম আছে।

 

একটি গুদামের আগুন মিনিট পনেরোর মধ্যে লাগোয়া আরও দুটি গুদামে ছড়িয়ে পড়ে। এই ঘটনায় এলাকায় তুমুল উত্তেজনা ও ভীতি ছড়িয়ে পড়ে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে আসে দমকল। মানিকতলা ফায়ার স্টেশন থেকে প্রথমে তিনটি, এবং পরে আরও সাতটি ও শেষে দুটি, অর্থাৎ মোট বারোটি ইঞ্জিন আসে আগুন নেভাতে৷ যদিও প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়। সঙ্কীর্ণ বস্তির গলি এবং সরু রাস্তার ফলে আগুনের উৎসে পৌঁছতে বেগ পেতে হয় দমকলকে।