জঙ্গলের মধ্যে থেকে পচাগলা দেহ উদ্ধার

মধ্যে

জঙ্গলের মধ্যে থেকে পচাগলা দেহ উদ্ধার। রহস্য জনক ভাবে এক কিশোরের মৃতদেহ উদ্ধার করল পুলিশ । মৃত ওই কিশোরের নাম মনোজ শেখ (১৬) । এদিন বিকেলে এই ঘটনায় মুর্শিদাবাদের সাগরপাড়া এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। একটি জঙ্গলের মধ্যে থেকে ওই মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।পরবর্তীতে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের পাঠায় পুলিশ।

 

স্থানীয় সুত্রে  জানা গিয়েছে ,বছর কয়েক আগে বাবা মায়ের বিবাহ বিচ্ছেদ হলে আত্মীয় বাড়িতে বেড়ে ওঠা মনোজের।তবে লতিবের পাড়া এলাকার বাসিন্দা ছবি বেওয়া নাতির মায়া ত্যাগ করতে পারেন নি । তাই অভাবের সংসারে চেয়ে চিনতে বড় করে তুলছিলেন নাতি কে । সেই নাতিই নিখোঁজ হয় কয়েক দিন আগে। নাতিকে খুঁজে পেতে দিদা এগ্রাম সে গ্রাম ঘুরে বেড়ান কিন্তু এই দু দিন তার কোন হদিস করতে পারেন নি তিনি ।

 

তবে পুলিশে অবশ্য খোঁজ দেওয়া হয় নি । অবশেষে গ্রামের এক দল মানুষ কাজ করতে গিয়ে দেখেন জঙ্গলের মধ্যে একটি পচা মৃতদেহ পড়ে রয়েছে । মৃতের দিদা মনোজের মৃতদেহ সনাক্ত করেন ।পরে তিনি বলেন , “ঘরে খাবার ছিল না ,তাই ওকে এলাকায় পাঠিয়েছিলাম গ্রাম ঘুরে কিছু নিয়ে আসার জন্য ।কিন্তু ও আমাকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেল ।

 

প্রতিবেশি আকরাম শেখ বলেন“ সহজ সরল প্রকৃতির ছিল মনোজ । তার উপর বাবা মা থেকেও নেই , তাই ওর এই ভাবে মৃত্যু মেনে নিতে পারছিনা। এর তদন্ত দরকার”।

 

উল্লেখ্য, জঙ্গলের মধ্যে থেকে পচাগলা দেহ উদ্ধার। রহস্য জনক ভাবে এক কিশোরের মৃতদেহ উদ্ধার করল পুলিশ । মৃত ওই কিশোরের নাম মনোজ শেখ (১৬) । এদিন বিকেলে এই ঘটনায় মুর্শিদাবাদের সাগরপাড়া এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। একটি জঙ্গলের মধ্যে থেকে ওই মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।পরবর্তীতে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের পাঠায় পুলিশ।

 

আর ও পড়ুন    প্রেমিকের বাড়িতে লাঞ্ছনার শিকার হয়ে অপমানে আত্মঘাতী কিশোরী

 

স্থানীয় সুত্রে  জানা গিয়েছে ,বছর কয়েক আগে বাবা মায়ের বিবাহ বিচ্ছেদ হলে আত্মীয় বাড়িতে বেড়ে ওঠা মনোজের।তবে লতিবের পাড়া এলাকার বাসিন্দা ছবি বেওয়া নাতির মায়া ত্যাগ করতে পারেন নি । তাই অভাবের সংসারে চেয়ে চিনতে বড় করে তুলছিলেন নাতি কে । সেই নাতিই নিখোঁজ হয় কয়েক দিন আগে। নাতিকে খুঁজে পেতে দিদা এগ্রাম সে গ্রাম ঘুরে বেড়ান কিন্তু এই দু দিন তার কোন হদিস করতে পারেন নি তিনি । তবে পুলিশে অবশ্য খোঁজ দেওয়া হয় নি । অবশেষে গ্রামের এক দল মানুষ কাজ করতে গিয়ে দেখেন জঙ্গলের মধ্যে একটি পচা মৃতদেহ পড়ে রয়েছে ।

 

মৃতের দিদা মনোজের মৃতদেহ সনাক্ত করেন ।পরে তিনি বলেন , “ঘরে খাবার ছিল না ,তাই ওকে এলাকায় পাঠিয়েছিলাম গ্রাম ঘুরে কিছু নিয়ে আসার জন্য ।কিন্তু ও আমাকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেল । প্রতিবেশি আকরাম শেখ বলেন“ সহজ সরল প্রকৃতির ছিল মনোজ । তার উপর বাবা মা থেকেও নেই , তাই ওর এই ভাবে মৃত্যু মেনে নিতে পারছিনা। এর তদন্ত দরকার”।