মায়াপুরে মধুচক্রের আসরে পুলিশের হানা, গ্রেফতার হলো কারা কারা ?

মায়াপুরে
মায়াপুরে

মায়াপুরে মধুচক্রে পুলিশের হানা, গ্রেফতার হলো কারা কারা ?  পর্যটকদের কাছে অতি পরিচিত নাম চৈতন্য ভূমি নবদ্বীপ মায়াপুর। মায়াপুরে গড়ে উঠেছে একাধিক গেস্ট হাউস। ঘন্টায় ঘন্টায় ভাড়া দেয়া হয় গেস্ট হাউজের বিভিন্ন রুম এমনটাই জানা গিয়েছে।

 

অনেকে বলেন মধুচক্র চলে আবার কেউ বলেন ফ্লায়িং মহিলাদের ভিড় থাকে ঐ সমস্ত গেস্ট হাউসে। দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ রয়েছে মায়াপুর নবদ্বীপ। মাঝেমধ্যে পুলিশের অভিযান চলে মধুচক্রে হারা দায়ে গ্রেপ্তার হয় অনেক যুবক-যুবতী মহিলা। মঙ্গলবার নবদ্বীপ থানার পুলিশ এবং নবদ্বীপ থানার পুলিশ এবং নাকাশিপাড়া থানার পুলিশের ইন্সপেক্টর এর যৌথ উদ্যোগে চলে পুলিশের অভিযান মায়াপুরের বিভিন্ন লজে।

 

পুলিশ মধুচক্রের আসরে হানা দিয়ে এক নাবালিকা সহ দুই ব্যক্তি কে গ্রেফতার করল নবদ্বীপ থানার পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার বিকেলে নদীয়ার নবদ্বীপ থানার মায়াপুরে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে এই দিন নাকাশিপাড়া জোনের সার্কেল ইন্সপেক্টরের নেতৃত্বে নবদ্বীপ থানার পুলিশের একটি টিম মায়াপুরে একটি বেসরকারি লজে হানা দিয়ে অপ্রীতিকর অবস্থায় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে।

 

আর ও পড়ুন    মাকে খুন করে ঘরের মেঝেয় পুঁতে দেওয়ার অভিযোগ উঠলো ছেলের বিরুদ্ধে

 

অভিযোগ ক্রমে জানা গিয়েছে যে পাশাপাশি আনুমানিক সতেরো বছর বয়সী এক নাবালিকাকে উদ্ধার করে পুলিশ। ধৃতদের নাম, মফিজুল সেখ,বয়স ২৮ বছর ও দীপক নস্কর বয়স ৫৩ বছর। মফিজুলের বাড়ি কালীগঞ্জ থানার গোহারাপোঁতা পূর্ব পাড়া এলাকায়।ও দীপক নস্কর বসবাস করেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারাইপুর থানার টেংরা বেরিয়া গ্রামে।

 

মঙ্গলবার দুপুরে ভারতীয় দণ্ডবিধির তিন,চার,পাঁচ, সাত আট ইমোরাল ট্রাফিক প্রিভেনশন অ্যাক্ট ১৯৫৬, রিড উইত সেভেনটিন এন্ড ফোর পোকসো অ্যাক্টে মামলা রুজু করে ধৃত দুই ব্যক্তিকে আদালতে পেশ করে পুলিশ। পুলিশের অভিযানে খুশি অনেকেই। প্রশ্ন উঠেছে তাহলে কি এই সমস্ত লজে বহিরাগত ফ্লায়িং মহিলাদের ভিড় কমবে.?