মাশরুম ভেবে ব্যাঙের ছাতা রান্না করে খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১০

মাশরুম ভেবে ব্যাঙের ছাতা রান্না করে খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১০। উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বসিরহাট মহকুমা হাসনাবাদ থানা আমলানি গ্রাম পঞ্চায়েতে তেঘরিয়া গ্রামের ঘটনা । জানা গিয়েছে, স্থানীয় বাসিন্দা  সুস্মিতা সরদার ও অনামিকা সরদার এর পরিবার নিজের বাগানে গিয়ে দেখে মাশরুম হয়েছে। ওই  পরিবারের কয়েকজন মাশরুম ভেবে ব্যাঙের ছাতা তুলে নিয়ে রান্না করে খায়। তারপর মাথার যন্ত্রণা পেটের ব্যথা বমি পায়খানা শারীরিক অসুস্থতা শুরু হয়।

 

বাড়ির  বাচ্চা মহিলা পুরুষ ১০ জন অসুস্থ হয়। তাদেরকে প্রথমে টাকি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে  গেলে চিকিৎসকরা শারীরিক অবনতির জন্য, বসিরহাট জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিতসকদের  প্রাথমিক অনুমান খাওয়ার ফলে ডায়রিয়া হয়েছে। আক্রান্তদের  চিকিৎসা চলছে হাসপাতালে। একদিকে স্যালাইন এর ব্যবস্থা করা হয়েছে অন্যদিকে ওষুধ দেওয়া হয়েছে।

 

আরও  পড়ুন  আবার বেড়ে গেলো পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম      

 

আক্রান্তদের  মধ্যে বেশিরভাগই হল মহিলা। আক্রান্তদের বক্তব্য,  এই সময় বাগানে মাশরুম হয়। সেইটা ভেবেই ব্যাঙের ছাতা কেটে নিয়ে রান্না করার পর সেই খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে পরি। এই ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্ক তৈরি হয়েছে তেঘরিয়া গ্রামে। চিকিৎসকদের বক্তব্য ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই সঠিক চিকিৎসা করলে সুস্থ হয়ে যাবে।

 

উল্লেখ্য, মাশরুম ভেবে ব্যাঙের ছাতা রান্না করে খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১০। উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বসিরহাট মহকুমা হাসনাবাদ থানা আমলানি গ্রাম পঞ্চায়েতে তেঘরিয়া গ্রামের ঘটনা । জানা গিয়েছে, স্থানীয় বাসিন্দা  সুস্মিতা সরদার ও অনামিকা সরদার এর পরিবার নিজের বাগানে গিয়ে দেখে মাশরুম হয়েছে। ওই  পরিবারের কয়েকজন মাশরুম ভেবে ব্যাঙের ছাতা তুলে নিয়ে রান্না করে খায়।

 

তারপর মাথার যন্ত্রণা পেটের ব্যথা বমি পায়খানা শারীরিক অসুস্থতা শুরু হয়।  বাড়ির  বাচ্চা মহিলা পুরুষ ১০ জন অসুস্থ হয়। তাদেরকে প্রথমে টাকি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে  গেলে চিকিৎসকরা শারীরিক অবনতির জন্য, বসিরহাট জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিতসকদের  প্রাথমিক অনুমান খাওয়ার ফলে ডায়রিয়া হয়েছে। আক্রান্তদের  চিকিৎসা চলছে হাসপাতালে। একদিকে স্যালাইন এর ব্যবস্থা করা হয়েছে অন্যদিকে ওষুধ দেওয়া হয়েছে।