সৌদির রাস্তায় পরিবেশন করা হয়েছে অর্ধনগ্ন সাম্বা নৃত্য

সাম্বা

সৌদির রাস্তায় পরিবেশন করা হয়েছে অর্ধনগ্ন সাম্বা নৃত্য। বিদেশি তরুণীর ঐতিহ্যবাহী খোলামেলা পোশাকে সৌদির রাস্তায় সাম্বা নাচের ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সৌদি আরবের দক্ষিণ–পশ্চিমাঞ্চলের জাজানের প্রধান সড়কে এমন নৃত্য দেখা যায়। প্রকাশ্যে এমন নাচ করায় সমালোচনা ঝড় উঠেছে।

 

সাম্বা নাচ পরিবেশনকারী নারীরা ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী পালকের রঙ আকৃতির পোশাক পরেন। এই পোশাকে দুই পা, বাহু এবং পেট খোলা থাকে। সৌদির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আল আখবারিয়া টিভি এই অনুষ্ঠানের ফুটেজ প্রচার করে। কিন্তু এতে ওই নারীদের ছবি ঝাঁপসা করে দেওয়া হয়।ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যায়, জাজানের প্রধান সড়কে বিদেশি শিল্পীরা নাচছেন। ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরেছিলেন তারা। জাজান উইন্টার ফেস্টিভ্যালে অংশ নিয়েছিলেন তারা।

 

এদিকে এমন ভিডিও প্রকাশের পর ক্ষোভ প্রকাশ করে জড়িত ব্যক্তিদের সাজাও দাবি করেছেন নাগরিকরা। তবে তারা এ নৃত্যের পক্ষে ও বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচারের মুখোমুখি করার দাবি উঠেছে। এরপর সমালোচনার মুখে জাজানের গভর্নর প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নাসের এ ঘটনার তদন্ত ও যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

 

আর ও পড়ুন    মাত্র দুই মিনিটের ঘুর্ণিঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেলো এই গ্রাম

 

উল্লেখ্য, সৌদির রাস্তায় পরিবেশন করা হয়েছে অর্ধনগ্ন সাম্বা নৃত্য। বিদেশি তরুণীর ঐতিহ্যবাহী খোলামেলা পোশাকে সৌদির রাস্তায় সাম্বা নাচের ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সৌদি আরবের দক্ষিণ–পশ্চিমাঞ্চলের জাজানের প্রধান সড়কে এমন নৃত্য দেখা যায়। প্রকাশ্যে এমন নাচ করায় সমালোচনা ঝড় উঠেছে। সাম্বা নাচ পরিবেশনকারী নারীরা ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী পালকের রঙ আকৃতির পোশাক পরেন। এই পোশাকে দুই পা, বাহু এবং পেট খোলা থাকে। সৌদির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আল আখবারিয়া টিভি এই অনুষ্ঠানের ফুটেজ প্রচার করে।

 

কিন্তু এতে ওই নারীদের ছবি ঝাঁপসা করে দেওয়া হয়।ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যায়, জাজানের প্রধান সড়কে বিদেশি শিল্পীরা নাচছেন। ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরেছিলেন তারা। জাজান উইন্টার ফেস্টিভ্যালে অংশ নিয়েছিলেন তারা। এদিকে এমন ভিডিও প্রকাশের পর ক্ষোভ প্রকাশ করে জড়িত ব্যক্তিদের সাজাও দাবি করেছেন নাগরিকরা। তবে তারা এ নৃত্যের পক্ষে ও বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচারের মুখোমুখি করার দাবি উঠেছে। এরপর সমালোচনার মুখে জাজানের গভর্নর প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নাসের এ ঘটনার তদন্ত ও যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।