দশমীতেই বৈশাখীর সিথি সিঁদুরে রাঙিয়ে দিলেন শোভন

সিঁদুরে

দশমীতেই বৈশাখীর সিথি সিঁদুরে রাঙিয়ে দিলেন শোভন । বিজয়া দশমীর দিনেই  সিঁদুরের রঙে বৈশাখীর সিঁথি রাঙিয়ে দিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।  কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানা রটনা ছিল। শেষে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় ডিভোর্স চেয়েছিলেন স্বামী মনোজিৎ মণ্ডলের কাছে। তা প্রকাশ্যে আসতেই উভয়ের অন্তরঙ্গতা আরও খোলামেলা হয়ে যায়।

 

দেবী দুর্গার আবাহনে উভয়ের শুটিং পর্ব থেকে শুরু করে ভিক্টোরিয়া ভ্রমণ ও ঘোড়া গাড়ি চড়া তো ভাইরাল। এদিন সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বৈশাখীর স্মৃতিতে সিঁদুর দিলেন শোভন। অন্তত বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি তেমনই। বিজয়া দশমীর সিঁদুর খেলায় এসে পূর্ণতা পেল শোভন-বৈশাখীর প্রেম!

 

শুক্রবার বিরাটিতে এক পারিবারিক দুর্গাপুজোয় সামিল হয়ে তাঁরা সিঁদুর খেললেন। তখনই বৈশাখীর সিঁথি তিনি রাঙিয়ে দিলেন রাঙা সিঁদুরে। বৈশাখীর গালেই শুধু সিঁদুর লাগালেন না শোভন, সিঁথিও ভরিয়ে দিলেন সিঁদুরে। বৈশাখী নিজেই সেই ছবি পোস্ট করেছেন। সেই পোস্টেই জানিয়েছেন বিজয়ার শুভেচ্ছা।

 

সিঁদুর খেলার সেই ছবি প্রকাশের পর বৈশাখী বলেছেন, অনেকে অনেক কথাই বলেছেন। অনেকে ভেবেছেন শোভন আমাকে স্বীকৃতি দেবে না। কিন্তু আজ সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে স্বীকৃতি দিল শোভন। আমার কাছে দুর্গাপুজোর দুটো দিন খুব প্রিয়। মহা অষ্টমী আর বিজয় দশমী। এদিন বিজয়া দশমী স্মরণীয় হয়ে রইল।

 

আর ও  পড়ুন       রবিবার থেকে রাজ্যে বাড়বে দুর্যোগ, বৃষ্টির সঙ্গে বইবে ঝড়ো হাওয়া

 

শোভন ও বৈশাখী যে একসঙ্গে পথা চলা শুরু করেছিলেন, তার আভাস আগে থেকেই দিয়েছিলেন তিনি। ফেসবুক পোস্টে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছিলেন- দ্য জার্নি ফ্রম মি টু উই বিগিনস। আমি থেকে আমাদের যাত্রা শুরু হল। আর প্রোফাইলে নাম বদল করে লিখেছিলেন বৈশাখী শোভন ব্যানার্জি। তখন থেকেই নিবিড় থেকে নিবিড়তর হতে শুরু করেছিলেন তাঁদের সম্পর্ক।

 

স্বামী মনোজিতের বিরুদ্ধে ডিভোর্স চাওয়ার পর শোভন-বৈশাখীর প্রেম প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে। তাঁরা বন্ধু-বান্ধবী থেকে হতে শুরু করেন প্রেমিক-প্রেমিকা।  উল্লেখ্য, রত্না-শোভনের ডিভোর্স মামলা এখনও আদালতে বিচারাধীন।

 

উল্লেখ্য, বিজয়া দশমীর দিনেই  সিঁদুরের রঙে বৈশাখীর সিঁথি রাঙিয়ে দিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।  কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানা রটনা ছিল। শেষে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় ডিভোর্স চেয়েছিলেন স্বামী মনোজিৎ মণ্ডলের কাছে। তা প্রকাশ্যে আসতেই উভয়ের অন্তরঙ্গতা আরও খোলামেলা হয়ে যায়। দেবী দুর্গার আবাহনে উভয়ের শুটিং পর্ব থেকে শুরু করে ভিক্টোরিয়া ভ্রমণ ও ঘোড়া গাড়ি চড়া তো ভাইরাল।

 

এদিন সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বৈশাখীর স্মৃতিতে সিঁদুর দিলেন শোভন। অন্তত বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি তেমনই। বিজয়া দশমীর সিঁদুর খেলায় এসে পূর্ণতা পেল শোভন-বৈশাখীর প্রেম!