দীঘায় প্রবল জলোচ্ছ্বাস ও ঝড়ো হাওয়া, জারি হল সর্তকতা

হাওয়া
হাওয়া

দীঘায় প্রবল জলোচ্ছ্বাস ও ঝড়ো হাওয়া , জারি হল সর্তকতা। আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে। আর তার সঙ্গে জুড়েছে নিম্নচাপের বৃষ্টি আর ঝড়ো হাওয়া। তার জেরেই দিঘার সমুদ্র সৈকতে ব্যপক জলোচ্ছ্বাস ও প্রবল বেগে ঝড়ো হাওয়া লক্ষ্য করা গিয়েছে।

 

ইতিমধ্যে দিঘাতে গার্ডওয়াল টপকে সমুদ্রের জন ঢুকছে স্থলভাগে। পাশাপাশি হু হু করে জল ঢুকছে সমুদ্র পাশ্ববর্তী একাধিক এলাকায়। ইতিমধ্যে সৈকত শহরের সি-বিচে উপচে পড়ছে বিশাল ঢেউ।

 

যা দেখতে সকাল থেকেই ভিড় জমিয়েছে পর্যটকরা। পাশাপাশি মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। তাজপুর,  জলধা,  মন্দারমনি,  জামড়া, শ্যামপুরের দুর্বল বাঁধের দিকে নজরদারি চালাচ্ছে প্রসাশন। সেইসঙ্গে চলছে টহলদারি।সমুদ্র তীরবর্তী পূর্ব মেদিনীপুর জেলাকে ঘিরে বাড়তি সর্তকতা নিয়েছে প্রশাসন।

 

আর ও পড়ুন    শিক্ষাক্ষেত্রে কি নিয়ম চালু করলো তালিবান সরকার ?

 

আবহাওয়া দফতরের সূত্রে খবর, আগামী কয়েকদিন ধরে গভীর নিন্মচাপ গ্রাস করবে দক্ষিণবঙ্গকে। তাই বজ্রবিদ্যুত সহ ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টিপাত হবে দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলায়। সমুদ্র তীরবর্তী পূর্ব মেদিনীপুর জেলাকে ঘিরে বাড়তি সর্তকতা নিয়েছে প্রশাসন।

 

পাশাপাশি মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। তাছাড়া সোম ও মঙ্গলবার ৪০থেকে ৫০কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়ার সম্ভাবনা আছে। সেজন্য উপকূল এলাকায় হলুদ সতর্কতা জারি হয়েছে। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যাওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

 

এবিষয়ে মৎস্য অধিকর্তা(মেরিন) সুরজিৎ বাগ বলেন, ১২থেকে ১৪সেপ্টেম্বর মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যেসকল মৎস্যজীবী সমুদ্রে আছেন, তাঁদের শনিবারের মধ্যে ফিরে আসতে বলা হয়েছিল। সাধারণত ৪০০-৫০০টি ট্রলার সমুদ্রে থাকে।

 

এদিন বেশকিছু ট্রলার ফিরে এসেছে। সকলেই আসতে পারেন না। তাঁরা যাতে খাঁড়ি কিংবা নিকটবর্তী কোনও মোহনায় আশ্রয় নেন সেটা বলা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

 

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে দিঘাতে গার্ডওয়াল টপকে সমুদ্রের জন ঢুকছে স্থলভাগে। পাশাপাশি হু হু করে জল ঢুকছে সমুদ্র পাশ্ববর্তী একাধিক এলাকায়। ইতিমধ্যে সৈকত শহরের সি-বিচে উপচে পড়ছে বিশাল ঢেউ।

 

যা দেখতে সকাল থেকেই ভিড় জমিয়েছে পর্যটকরা। পাশাপাশি মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। তাজপুর,  জলধা,  মন্দারমনি,  জামড়া, শ্যামপুরের দুর্বল বাঁধের দিকে নজরদারি চালাচ্ছে প্রসাশন। সেইসঙ্গে চলছে টহলদারি।সমুদ্র তীরবর্তী পূর্ব মেদিনীপুর জেলাকে ঘিরে বাড়তি সর্তকতা নিয়েছে প্রশাসন।