বড়লোক বাড়ির মেয়েকে বিয়ের দায় পুলিশের মারে প্রান গেল কাকার

0
7

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব মেদিনীপুর ,১৪ অক্টোবর, ২০২০:ধনী পরিবারের মেয়েকে পালিয়ে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করলো যুবক। মেয়ের পরিবার থানায় অভিযোগ করলে যুবককে খুঁজে না পেয়ে যুবকের কাকাকে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ। এমনকি পুলিশের অত্যাচারে মৃত্যুও হয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর থানার কনকপুর গ্রামে।

সূত্রের খবর, এলাকার যুবক কিশোর ঘোড়ই কয়েক মাস আগে পাশের বাসুদের পুর এলাকার ধনী গৌরাঙ্গ পাখুরিয়ার মেয়েকে নিয়ে পালিয়ে বিয়ে করে। আগে থেকে ছেলে ও মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানা যায়। মেয়ের বাড়ির তরফ থেকে থেকে পটাশপুর থানায় অভিযোগ করা হয়। ছেলের পরিবারের একমাত্র থাকা মা ও পালিয়ে যায়। দীর্ঘ খোঁজা খোঁজির পর মা ছেলেকে না পেয়ে, আলাদা করে থাকা ছেলের কাকা মদন কুমার ঘোড়ই কে পুলিশ তুলে নিয়ে যায় গত ২৬ শে সেপ্টম্বর। অভিযোগ মদনকে পুলিশ হেপাজতে ব্যাপক মারধর করা হয় তার জেরেই মৃত্যু হয়। গতকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ থেকে খবর দেওয়া হয় মদন কুমার ঘোড়ই মারা গিয়েছে।মৃতের পরিবার ও গ্রামবাসীর অভিযোগ মেয়ের পরিবারের বাবা আত্মীরা ধনী হওয়ায় পুলিশ টাকা খেয়ে এই কাজ করেছে।

আরও পড়ুন…পুজোর উৎসবে মানুষের মাতামাতিতে গণ্ডগোল বেশি হয়, মন্তব্য সায়ন্তন বোসের

অপর দিকে বিজেপির অভিযোগ ছেলে ও তার কাকা বিজেপি করতো এমন কি খুব গরিব, মেয়ের পরিবার তৃণমূল করে ধনী পরিবার তাই পুলিশকে কাজে লাগিয়ে এমন কাজ করেছে বলে অভিযোগ। যদিও বিষয়টি পরিবারের ও তৃণমুলের থেকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করা হয়েছে।